Editorial

হে বঙ্গবন্ধু, বাংলাদেশ আজ ভালো নেই

আগ্নেয়গিরির নাম ‘ভিসুভিয়াস’ জানার আগে জেনেছি আরেকটা আগ্নেয়গিরির নাম ছিল শেখ মুজিবুর রহমান। হিমালয় দেখিনি, তবে নেলসন ম্যান্ডেলার চোখে আমিও হিমালয়ের প্রতিচ্ছবি শেখ মুজিবুর রহমানকে দেখেছি। তবে আজ আপনার কাছে অনেক অভিযোগ জানাবো। বাকির খাতায় তুলে রাখা সকল হিসাব চুকিয়ে নেবো আজ।

১৯২০ সালের এই দিনে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় জন্ম নিয়েছিলেন লুৎফর-সাহারা দম্পতির ঘরে। একই আঁতুড়ঘরে সেই দিনই জন্ম নিয়েছিলো বাংলাদেশ। বেড়ে উঠছিলো আপনার দুই চোখে। বাংলাদেশ বলতে আমরা আপনাকেই বুঝি। আপনার বিশালতাতেই লুকিয়ে আছে বাংলাদেশ। তবু মাঝে মাঝে আপনাকে হারিয়ে ফেলি। কারাগারের রোজনামচা লিখতে গিয়ে আপনি লিখেছিলেন, “জেলেও নানা রকমের জেল আছে।” আজ বাংলাদেশের ভেতরও নানা রকম বাংলাদেশ, বাঙালির ভেতরও নানা রকম বাঙালি। ১৯৭০-এর শেখ মুজিব আর ২০১৯-এর শেখ মুজিব এক নন। ৭০ এর শেখ মুজিব গোটা মানচিত্রের, ১৯ এর শেখ মুজিব কিছু মানুষের। ১৯-এ এসে এমন কিছু মানুষ শেখ মুজিবকে পুঁজি করেন যারা জীবনেও ‘কারাগারের রোজনামচা’ বা ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ উলটে দেখেনি। ধানমন্ডি ৩২ নম্বরের লেকপাড়ের বাসাটিতে কখনো উঁকি দিয়ে দেখেনি জমে থাকা আর্তনাদের সচিত্র বর্ণনা। পড়ে দেখেনি ‘বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক দর্শন’। তারা জানেন না কেনো ১৯৬৬, জানেন না কোনও ১৯৬৯। তারা জানে না ১৯৭১ কিভাবে বাঙালির? তারা জানে না আইয়ুব-ইয়াহিয়ার ত্রাস বঙ্গবন্ধুকে। তাদের একমাত্র শিক্ষা এবং সম্বল ‘জয় বঙ্গবন্ধু’ বুলি। তাদের বুকে আপনি থাকেন না, আপনি থাকেন তাদের মুখে।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ যেমন আপনার কাছে ঋণী, বাংলাদেশের প্রতি ইঞ্চি ধূলিকণা আপনার কাছে কৃতজ্ঞ। এই ভূখন্ডের প্রতিটি প্রজন্ম আপনার নাম বুকে নিয়ে বাঁচে। তাই তো ৭৫ পরবর্তী পটপরিবর্তনে ক্ষমতায় আসা অপশক্তিগুলোর কেউই আপনার নাম মুছে দিতে পারেনি। আজও আপনার রক্ত কপালে মেখে লাখো শেখ মুজিব নতুন বাংলাদেশের শপথ নিচ্ছে। শপথ নিচ্ছে আপনার স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ গড়ে তোলার। যারা আপনার নাম মুখবন্দী করে দেশটাকে ‘পেয়ারে পাকিস্তান’ বা দুর্গন্ধযুক্ত ভিয়েতনাম বানানোর নীলনকশা করছে, তাদের রুঁখে দাঁড়ানোটা আজই প্রয়োজন। ৭ মার্চের ভাষণ থেকে শক্তি নিয়ে আজও কিছু তরুণপ্রাণ আপনার নামেই ভরসা খোঁজে। বাংলাদেশের বুকে শুয়ে দেখা প্রতিটি নক্ষত্রই শেখ মুজিব মানি। তবে যে ছায়াপথেই থাকুন না কেনো, এই মাণিকদের শক্তি যোগাতে প্রেরণা হয়ে ধরা দিন।

অগাধ বিশ্বাস নিয়ে এটাই কামনা করি, পরপারে হয়তো ভালোই আছেন জাতির পিতা। তবে দুঃখের বিষয়, বাংলাদেশ ভালো নেই।

ইতি,
আপনার এক অবহেলিত সন্তান।

Promotion