Notice: Undefined index: status in /home/dailynew7/public_html/exclusiveadhirath.com/wp-content/plugins/easy-facebook-likebox/easy-facebook-likebox.php on line 69

Warning: Use of undefined constant REQUEST_URI - assumed 'REQUEST_URI' (this will throw an Error in a future version of PHP) in /home/dailynew7/public_html/exclusiveadhirath.com/wp-content/themes/herald/functions.php on line 73
হাঁড়িকাঠে রামপ্রসাদের বদলে হঠাৎ রঘু ডাকাত দেখলেন মা কালীর মুখ!
মরসুমী ফুল

হাঁড়িকাঠে রামপ্রসাদের বদলে হঠাৎ রঘু ডাকাত দেখলেন মা কালীর মুখ!

মা কালী আদতে শক্তিদেবী। গায়ের জোরে লুঠত রাজ চালিয়ে যারা বেঁচে থাকার ভাতকাপড় জোটাতো তারা কালীপুজো করবে না তো আর কে করবে? বাংলার সেই সব কালী মন্দিরের প্রতিষ্ঠাতারা ছিলেন পেশায় ডাকাত। অবশ্য নেশায় তারা ছিলেন কালী উপাসক। চিৎপুরের বুকে রঘু ডাকাতের কালীবাড়ি সেরকমই এক ইতিহাসের জলজ্যান্ত সাক্ষী!
শোনা যায়, একবার মাতৃভক্ত সাধক রামপ্রসাদ রঘু ডাকাতের খপ্পরে পড়েন। ব্যাস, তক্ষুণি তাকে পাকড়াও করে নরবলির জন্য নিয়ে আসা হয় মন্দিরে। সেই মুহূর্তে রামপ্রসাদের মৃত্যু কার্যত নিশ্চিত। হাড়িকাঠে বলির ঠিক আগে রামপ্রসাদ মাকে গান শোনানোর আবেদন জানালেন। রঘু ডাকাতও সেই আবেদন মঞ্জুর করেন। মোহিত হয়ে রামপ্রসাদের শ্যামাসঙ্গীত শুনতে থাকেন রঘু। হঠাৎ কাঁটা দিয়ে উঠলো তার সাড়া গায়ে। এ কী দেখলেন তিনি? এ যে রামপ্রসাদ নয়, হাড়িকাঠে রামপ্রসাদের পরিবর্তে মায়ের মুখ! রঘু ডাকাত সঙ্গে সঙ্গে বলি বন্ধ করে রামপ্রসাদের সেবার বন্দোবস্ত করেন। পরের দিন সকালে তাকে বাড়ি পৌঁছে দিয়ে আসা হয়।
একটা সময় ছিল যখন নরবলি ও ল্যাটামাছ পোড়া কালীকে উৎসর্গ করে ডাকাতি করতে বেরোত রঘু ডাকাত। আধুনিক তিলোত্তমার বুকে আজ আর সে দিন নেই। তবে, কালীপুজোর দিনে ল্যাটামাছ পোড়া দেওয়ার চল এখনও  রয়েছে। প্রাচীনতার গন্ধ মাখা সে প্রসাদ পেতে দূরদূরান্ত থেকে ভক্তরা ছুটে আসেন রঘু ডাকাতের কালীমন্দিরে।

Promotion