EXCLUSIVE NEWS

শীতের প্রাক্কালে রাজ্য জুড়ে লেপের বাজারের ব্যস্ততা তুঙ্গে

 

পুরোপুরি শীত না পড়লেও শীতের আভাস ভালোভাবেই টের পাওয়া যাচ্ছে। রাজ্য জুড়েই পড়েছে লেপ তৈরির ধুম। ব্যস্ততা বেড়েছে স্থানীয় ও বিহার থেকে আগত কারিগরদের। বেশ কিছুদিন ধরেই শেষ রাতে শীত অনুভূত হচ্ছে।আর এই অনুভূতিকে মাথায় রেখেই বিভিন্ন বাড়িতে বাক্সবন্দি করে রাখা লেপ-তোষক বের করা হচ্ছে। অনেকেই আবার পুরনো লেপ মেরামত করছেন, নয়তো নতুন করে কিনছেন লেপ। তাই ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন লেপ-তোষকের কারিগররা। গোটা রাজ্য জুড়ে কারিগরদের টুংটাং আওয়াজ আর বাতাসে উড়ে বেড়ানো তুলো জানিয়ে দিচ্ছে শীত দরজায় কড়া নাড়ছে।

 

দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার এক কারিগর আহমদ আলী বলেন, “কিছু দিন আগেও তেমন কাজের চাপ ছিল না। কিন্তু গত এক সপ্তাহ ধরে ভোরের হালকা কুয়াশায় শীতের আমেজে লেপ তৈরির অডার্র শুরু হয়েছে। বতর্মানে পুরনো লেপ ভেঙে নতুন ভাবে তৈরির অডার্রই বেশি পাওয়া যাচ্ছে। সেই সঙ্গে গামের্ন্টসের তুলা দিয়ে তৈরি লেপও বিক্রি হচ্ছে।” আরেক কারিগর জানান, বিহার থেকে আসা লেপ-তোষক তৈরির কারিগরেরা (ধুনক) ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন পুরোদমেই। ধুনক মন্টু চৌধুরী জানান, তিনি রোজই প্রায় ৫-১০টি লেপ অর্ডার পাচ্ছেন। তার আশা বিয়ের মাস আর শীতের যুগলবন্দী তাকে দৈনিক ২০-২৫টি অর্ডার এনে দেবে। তার কাছে প্রতিটি লেপ এক হাজার থেকে দেড় হাজার টাকা দামের মধ্যে মধ্যে পাওয়া যাচ্ছে। পাঁচ কেজি তুলা দিয়ে বানিয়ে সেই লেপ তিনি বেচছেন। অন্যদিকে কারিগর রাকেশ চৌধুরী বলেন, সাধারণতঃ ক্রেতারা রেডিমেট হিসেবেই এগুলি কিনে থাকেন। তিনি আরও জানান, এবার তুলোর দাম একটু বেশি হওয়ার কারণে বড় লেপের দাম গত বছরের তুলনায় ১৫০-২০০ টাকা বেশি লাগছে।

প্রতিবেদক পল মৈত্র

 

Promotion