মরসুমী ফুল

বড়দিনে ঘর সাজানোর জিনিস কিনবেন? ঘুরে আসুন নিউ মার্কেট

 

বাঙালির বারো মাসে তেরো পার্বণে বহু আগেই জায়গা করে নিয়েছে বড়দিন আর ইংরেজি নববর্ষ। উত্তুরে হাওয়া শুরু হতেই অপেক্ষার প্রহর গোনা শুরু। অবশেষে দোরগোড়ায় কড়া নাড়ছে এই দুই মহোৎসব। খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের উৎসব হলেও বড়দিন এখন সার্বজনীন। খুব স্বাভাবিক ভাবেই বাদ নেই বাঙালিরাও। উৎসব মুখর বাঙালি বড় আপন করে নিয়েছে এই দিনগুলিকে। উপলক্ষ্য বড়দিন হোক কিংবা ইংরেজি নববর্ষ এই উৎসব আসলে উপহার আদানপ্রদানের, শুভেচ্ছা বিনিময়ের। তাই এই উৎসবে নিজে সাজার পাশাপাশি আপনার ঘরকেও মনের মত সাজানোর জন্য আপনার ফার্স্ট চয়েস হতেই পারে নিউ মার্কেট।

 

উৎসবের আয়োজনে ইতিমধ্যেই কাউন্টডাউন শুরু হয়ে গিয়েছে সেখানে। আমরা জানি, ঐতিহ্য এবং আভিজাত্যের মিলনক্ষেত্র সুপ্রাচীন হগ মার্কেট। বড় রাস্তা থেকে নিউ মার্কেট ঢোকার সামনেই চোখে পড়ে বড়দিনের পসরা সাজিয়ে বসা কিছু দোকান। দূর থেকে বড় চোখে লাগে রঙিন সব বিপণি। সেই সব পসরা যেন কাছে আসার হাতছানি দেয়। গোটা ডিসেম্বর জুড়েই বিকিকিনি হলেও শেষ কয়েকটা দিনে ক্রেতা সামলাতে হিমশিম খেতে হয় দোকান মালিকদের। শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি সারতে বাবা-মা’র হাত ধরে দোকানগুলিতে ভিড় জমায় শিশুরাও। বড়দিনের সবচেয়ে আকর্ষন সান্তাক্লজ। মাথায় লাল-সাদা টুপি, গায়ে লোমশ গাউন, কাঁধে ঝোলা আর পায়ে ফুলকো জুতো পরা সান্তা দাদুকে দেখলে শিশুমন যে খুশি হবে তা বলাই বাহুল্য। এখানে এইসব সামগ্রীর দামও সস্তা এবং সাধ্যের মধ্যে। পাবেন সোনালী-লাল-বেগুনি রঙের ঘন্টা, রাঙতা, বিভিন্ন আকারের বেল, কৃত্রিম ফুল।

 

ওপরে ঝোলানো রঙিন কাগজের তারাগুলো দেখে নিমেষেই আপনার চোখ আটকে যাবে। এগুলি দাম ৩০ টাকা থেকে সর্বোচ্চ ২৫০ টাকা পর্যন্ত। পাবেন বড়দিনের বিভিন্ন শুভেচ্ছাপত্র বা দরজায় ঝোলানোর জন্য ‘মেরি ক্রিসমাস ‘লেখা ব্যানার। যেটি ছাড়া সব আয়োজনই অসম্পূর্ণ সেই ক্রিসমাস ট্রিও হাতের মুঠোয়। লাল,নীল আলো জ্বলা ক্রিসমাস ট্রি গুলির দাম আকার হিসেবে ভিন্ন। এক দোকানি মহম্মদ আমন জানালেন, এক ফুট থেকে ছয় ফুট লম্বা ক্রিসমাস ট্রি পাবেন ৩৫ টাকা থেকে সর্বোচ্চ ৩০০ টাকার মধ্যে। এছাড়া ক্রিসমাস ট্রি সাজানোর আলো, পাখি, স্বর্গদূত পাবেন ১০০ টাকার মধ্যেই। এবারের এক্সক্লুসিভ ঘর সাজানোর জিনিস হিসেবে সবুজ রঙা রিট পাওয়া যাচ্ছে ১০০ টাকায়। একেবারে খুদে সান্তাক্লজের দাম ৩০ টাকা থেকে শুরু। তবে ৪ ফুটের একটু বড় মাপের সান্তা চাইলে দাম পড়বে ৫০০ টাকা। আরেক দোকানি প্রবীর দাস জানালেন, ট্যান্সিল বিকোচ্ছে প্রতি পিস ২০-৫০ টাকা (মাপ অনুযায়ী) দরে।

 

এ হেন নিউমার্কেটে কিছু সময় কাটানোর পর মনে আসতেই পারে কাব্যিক ব্যাঞ্জনা। আর আসবে নাই বা কেন? গোটা শহর যখন রুক্ষ্মতায় সেজে সবুজহীনতার কঠিন অসুখে ধুঁকছে, তখন মাটির বুকে সবুজ পাইনের জঙ্গল দেখে মনে পড়তেই পারে কবি শক্তি চট্টোপাধ্যায়ের কথা। ‘তাই বলি গাছ তুলে আনো, বাগানে বসাও আমি দেখি’।

 

Promotion