মরসুমী ফুল

আদালতের কুঠুরিতে দাঁড়িয়ে মনের মানুষকে ‘প্রোপোজ’ করেছিলেন এই বিপ্লবী!

 

তখন চলছে বিপ্লবের অগ্নিযুগ। গোটা দেশের মানুষ বিভোর স্বাধীনতার স্বপ্নে। চট্টগ্রাম অস্ত্রাগার লুন্ঠনের মামলার বিচার চলছে। আদালতের কুঠুরিতে দাঁড়িয়েই তার ভালবাসার মানুষটিকে প্রোপোজ করেছিলেন রাজদ্রোহের অপরাধে বন্দী ফুটুদা। মাষ্টারদা সূর্য সেন ধরা পরার পরে দলের দায়িত্বের ব্যাটন কাঁধে তুলে নেন ফুটু দা ওরফে বিপ্লবী তারকেশ্বর দস্তিদার। “তোকে ভালো লাগে। যদি ফিরে আসি, আমার জন্য অপেক্ষা করবি?” ঠিক এই ভাষাতেই মনের কথা বলেছিলেন আরেক বন্দী বিপ্লবী কল্পনা দত্তকে।

 

নাহ, অত্যাচারী ব্রিটিশ শাসকের রক্তচক্ষু তাঁকে ফিরতে দেয়নি। ১৯৩৪ সালের ১২ জানুয়ারি মাস্টারদা সূর্য সেন এবং তারকেশ্বর দস্তিদারের ফাঁসি হয়ে যায়। কল্পনা দত্তর পান কালাপানির সাজা। যদিও রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের মধ্যস্থতায় তিনি কালাপানির বদলে এখানেই কারাদণ্ড ভোগ করেন। ঘটনার দশ বছর পর নতুন করে কল্পনা দত্ত প্রেমের প্রস্তাব পান। উত্তর দিয়েছিলেন, “আমি যে তারকেশ্বর দস্তিদারকে কথা দিয়েছি।’’

 

 

 

Promotion