কলমের শক্তি

নস্ট্যালজিয়া

এক সন্ধ্যায় দেখা
আধো প্রেম আধো চেনাজানা।
এরপর আবার যেদিন আসবে তুমি
সাধারণ একরঙা তাতের শাড়ি পড়বো,
ঘন নীল পাড়ের সাথে মেলানো স্লিভলেস ব্লাউজ,
এসব ভাবতে ভাবতে একটা শাড়ি কিনে ফেলি
ডান বাহুতে যেখানে অপারেশনের কাটা দাগ স্পষ্ট
তোমার ঠোঁট ওখানেই চুমু খায় বার বার
তোলপাড় করে সারাবেলা ঘর সংসার
তুমি ঘরে ঢুকেই জড়িয়ে ধরবে আমার সরু কোমর
সারস গ্রীবায় চুমু খেতে গিয়ে ডুবে যাবে তোমার নাক
পিঠের জমিনে তোমার হারানো ঘুড়ির লাটাই গুটানো বিকেল
বুকে মাথা রেখে দু’ঘন্টা, নড়াচড়া নেই, ভুলিনি কিন্তু।
আমাদের ঠোঁটে ঠোঁটে সেদিনের বিকেলগুলো
কখন মরেছে জানো?
আমার গালে মুখে ঘষে দেয়া তোমার গোফ কিংবা ফ্রেঞ্চকাট দাড়ির ছোঁয়া,
এক সন্ধ্যায় বড় আপন করেছিলে। তুমি জানো।
আর আমি…
তখন কিরোর সেই বিখ্যাত উক্তিটির কথা ভাবছিলাম
ঘন আলিঙ্গন – ভাঁজ খুলে খুলে দেখা পুরানো নতুন
প্রস্তুতিহীন এই সঘন যাপন, কেন যে এতটা মধুর আজও
এ প্রশ্নের উত্তর খুঁজিনি আর।
তোমার মুখের ছায়া ভাসে দিনে দিনে অকারণ।
সাদা ক্যানভাসে ভাসে বন্ধুর মুখ।
কণ্ঠও হারাবে কোনোদিন ভাবিনি, অথচ হারালো তোমার অক্ষরও।
তবু, আমি চিঠি লিখি প্রতিদিন।
তোমার পড়া হয়ে ওঠেনা…
আমি অধীর অপেক্ষমান, তৃষ্ণা মেটে না।
তবু, প্রতি সন্ধ্যায় দাঁড়াই আয়নায়
কতকাল এভাবে দেখিনা নিজের মুখ
তুমি জানো না।

About the author

শাপলা সপর্যিতা (বাংলাদেশ)

1 Comment

Click here to post a comment