EXCLUSIVE NEWS

সত্যেন, স্বপ্নসন্ধান ও দক্ষিণ চব্বিশ পরগণার প্রথম পরিবেশ বান্ধব অ্যাম্বুলেন্স!

 

সত্যেন দাস। ‘লাদাখ চলে রিক্সাওয়ালা’ নামক তথ্যচিত্র কিংবা রিক্সা চালিয়ে লাদাখ গিয়ে লিমকা বুকস অফ রেকর্ডসে নাম ওঠার সুবাদে সত্যেন রীতিমতো এক সেলেব। প্রতি বছর অন্ততঃ খান কুড়ি পুজো এবং চল্লিশটি মেলা, খেলা, উৎসবের উদ্বোধন রয়েছে তালিকায়!

কিন্তু এই সত্যেনের আপন যাপনের সত্য আসলে কী? তার ভাবনা? স্বপ্ন? ঘরদোর? পরিবেশ,পরিস্থিতি, সংগ্রাম, সংহতিই বা কী? আপাতদৃষ্টিতে অন্ধকারে ঢাকা এক সোনার খনি বলাই যায়! তাকে জানা ও বাকিদের জানানো এবং তাকে বোঝা ও অন্যদের বোঝানোর এক স্বেচ্ছাকৃত দায়িত্ব নিয়েছে বারুইপুর এলাকার নড়িদানা স্বপ্নসন্ধান। সত্যেনের একমাত্র সন্তান সুকন্যার পড়াশুনার ব্যবস্থা করেছে এই স্বপ্নসন্ধান। অটো, টোটোর দাপটে রিক্সা ক্রমশই কোণঠাসা। রিকশা চালক হিসেবেও সত্যেন জীবন্ত সমস্যার মুখোমুখি। এই জীবন-জীবিকার লড়াইয়ে স্বপ্নসন্ধান যৌথতার ভিত্তিতে সমমনস্ক সংস্থাগুলোকে একসঙ্গে লড়াইইয়ে সামিল হওয়ার আবেদন রেখেছে। ইতিবাচক সাড়াও মিলেছে। রিক্সা পেইন্টিং থেকে পরিবেশ বান্ধব অ্যাম্বুলেন্স সেই ভাবনার সর্বশেষ প্রতিফলন।

 

পরিবেশবান্ধব অ্যাম্বুলেন্স বা গ্রামীণ সেবাযানটির উদ্ভাবক ও দাতা গোবরডাঙা প্রিজম। সংস্থার পক্ষ থেকে এটি নড়িদানা স্বপ্নসন্ধানের হাতে তুলে দেওয়া হয়। স্বপ্নসন্ধানের সম্পাদক সুমিত মন্ডল জানান, সেবাযানটি তারা পরিবেশ বার্তাবাহক সত্যেন দাসের হাতে তুলে দেবেন। এর থেকে প্রাপ্ত অর্থ থেকে সত্যেন নিজের সংসারের ব্যয় নির্বাহ করবে। পরিবেশবান্ধব এই সেবাযানে অক্সিজেন স্যালাইনের ব্যবস্থাপনা থাকছে। গাড়ি চালানোর রসদ হিসাবে থাকছে সৌরশক্তি চালিত প্যানেল বোর্ড। এই যানটি একেবারেই পেট্রোল ও ডিজেল বিহীন। গ্রামের প্রান্তিক, গরিব মানুষের ঘরের দোরগোড়ায় পৌঁছে যাবে এই অ্যাম্বুলেন্স। খরচ একেবারেই নামমাত্র। এখানেই এটির কৃতিত্ব শেষ নয়। শিশু, গর্ভবতী মহিলা কিংবা বয়স্ক ব্যক্তিদের জরুরী পরিষেবা কেন্দ্রে নিয়ে যাওয়ার সামাজিক দায়িত্ব পালন করবে এই সেবাযান। দূষণমুক্ত পৃথিবীর বার্তার সঙ্গে সাধারণ মানুষের জন্য নিয়োজিত এই সেবাযান যে এলাকার সম্পদ হতে চলেছে এই নিয়ে বিন্দুমাত্র সন্দেহ নেই। এভাবেই বারুইপুর সংলগ্ন এলাকা নতুন স্বপ্নের প্রহর গুনতে শুরু করেছে।

 

 

Promotion