কাটাকুটি

ধনকুঁন্দ্রা – অন্ধবিশ্বাসের মোড়কে ভাবায় যে নাটক

গত ১৯ জানুয়ারি কলকাতার মধুসূদন মঞ্চে পরিবেশিত হল নাটক ধনকুঁন্দ্রা। পুরুলিয়া জেলার কিছু সাধারণ মানুষজনের জীবনযাপনের চিত্র নাটকটিতে তুলে ধরা হয়েছে, যা আসলে অন্ধবিশ্বাসের মোড়কে সামনে আসে। পরিবেশনাটি নিবেদন করেন তিলজলা ঋতু প্রোডাকশন। নাটকটির রচয়িতা এবং নির্দেশক হলেন জয়ন্ত দীপ চক্রবর্তী।

মহারাজনগর গ্রামের বাসিন্দাদের বিশ্বাস ধনকুঁন্দ্রা হলেন তাদের সম্পদ, শস্য এবং গবাদি পশুর রক্ষক। গ্রামবাসীদের বিশ্বাস অনুযায়ী এই রক্ষক আসলে একজন ভূত। তিনি থাকেন লখু হেমব্রমের বাড়িতে। ঠিক এই পরিস্থিতির মুখে দাঁড়িয়ে এই ভূতের খবর পাঁচকান হয়ে পৌঁছয় কলকাতার এক ব্যর্থ এবং অলস ব্যাবসায়ী প্রসেনজিৎ মণ্ডলের কাছে। তিনি অত্যন্ত লোভী এবং কুসংস্কারাচ্ছন্ন মানুষ। তাই খুব অল্প সময়ে বড়লোক হওয়ার জন্য তিনি যে কোনও উপায় ধনকুঁন্দ্রাকে নিজের হস্তগত করতে তৎপর হয়ে ওঠেন। ইতিমধ্যেই যার বাড়িতে সেই ভূত থাকে সেই লখুও রাজি হয়ে যায় সেই ভূতকে বেচতে। এক তান্ত্রিককে সঙ্গে নিয়ে একটি যজ্ঞের আয়োজন করা হয় যেখানে ভূতের মালিকানার হাতবদল করা হবে। সাত দিন ধরে চলে এই যজ্ঞ। কিন্তু কোন পরিণতিতে পৌঁছয় পরিস্থিতি? প্রসেনজিৎ মণ্ডল কি আদৌ সফল হন তার উদ্দেশ্যে? জানতে হলে দেখতে হবে তিলজলা ঋতু প্রোডাকশন নিবেদিত ধনকুঁন্দ্রা নাটকটি।

Promotion