EXCLUSIVE NEWS

উত্তরপাড়ায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস নিয়ে কোটনিস কমিটির আলোচনা সভা

 

উত্তরপাড়া কোটনিস কমিটি নামক গভীরপ্রোথিত শিকড়সমৃদ্ধ ঐতিহ্যপূর্ণ মঞ্চটি গত শুক্রবার ‘মাতৃভাষা দিবস’ নিয়ে একটি আলোচনাসভার আয়োজন করে। বক্তা হিসেবে হাজির ছিলেন প্রবুদ্ধ চট্টোপাধ্যায় এবং অনির্বাণ মণ্ডল। ফ্যাসিবাদ-প্রবণ ভারতে বর্তমান সময়ে বাংলাদেশের ভাষা আন্দোলন, মুক্তিযুদ্ধ থেকে নানা নিপীড়িত ভাষাগোষ্ঠীর প্রতিস্পর্ধী লড়াই, বৈচিত্র‍্যপূর্ণ ভাষাসংস্কৃতির মিলনাকাঙ্ক্ষার উদযাপন সবই উঠে আসে এদিনের আলোচনায়। সাপ্রদায়িক বিভাজনের কাঁটাতারে বাংলা ভাষা এই মুহূর্তে যেভাবে রক্তাক্ত হয়ে উঠছে তাও আলোচিত হয়।

 

গবেষক অনির্বাণ মণ্ডল ‘এক্সক্লুসিভ অধিরথ’কে জানান, ভারত এবং বাংলাদেশের বাংলা ভাষার মধ্যে একটি বিভাজন তৈরি হয়ে গিয়েছে ইতিমধ্যেই। এর বড় কারণ অবশ্যই ধর্মীয় পরিচয়। পশ্চিমবঙ্গ জুড়ে বাংলা জাতীয়তাবাদের একটি উত্থান দেখা যাচ্ছে, যেখানে বাংলা বা কলকাতার বুকে হিন্দি আগ্রাসনের বিরোধিতা করা হচ্ছে। আপনি কি একে সমর্থন করেন? এর উত্তরে অনির্বাণ বলেন, আগ্রাসন ব্যাপারটি কি শুধু হিন্দিতেই ভাষাতেই চলছে? আগ্রাসন সেই রাজনৈতিক অর্থনীতি এবং সংস্কৃতির যারা হিন্দি ভাষার ধ্বজা তুলে ধরেছে। ভাষা কখনও আগ্রাসন করেনা। বাংলা ভাষায় বহু হিন্দি শব্দ রয়েছে, ঠিক যেরকম হিন্দিতে আরবী অথবা ফার্সী শব্দ রয়েছে। যে হিন্দি আগ্রাসনের কথা বলছি সেটি কোন হিন্দি? বলিউডি হিন্দি! আদৌ কতোজন হিন্দিভাষী সেই হিন্দিতে কথা বলেন সে নিয়েও সন্দেহ রয়েছে। হরপ্রসাদ শাস্ত্রী বলেছেন ভাষা ঔদার্যের পক্ষপাতী। আমি বাংলা জাতীয়তাবাদীদের হিন্দির বিরোধিতাকে সমর্থন করিনা। কারণ সেটিও এক ধরনের সঙ্কীর্ণতা। সংস্কৃতের গঙ্গাজল দিয়ে বাংলা ভাষাকে ধোয়ার চেষ্টা হয়েছিল, এটি অনেকটা সেইরকম। আমার প্রশ্ন শুধু হিন্দি কেন? ইংরেজি নিয়েও করুন বিরোধিতা। সেটি তারা করবেন না কারণ, তারা ইংরেজি মাধ্যমে পড়াশুনা করেছেন এবং ইংরেজির সুবিধা প্রাপ্ত।

Promotion